আরো

    শোল মাছের কৃত্রিম প্রজনন করলেন BFRI এর বিজ্ঞানীরা

    বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিএফআরআই) বিজ্ঞানীরা এবার হ্যাচারিতে প্রথমবারের মতো শোলমাছের কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পোনা উৎপাদনে সাফল্য অর্জন করেছে। দেশী প্রজাতির মাছের মধ্যে শোলমাছ গুরুত্বপূর্ণ এবং সুস্বাদু মাছ। এ নিয়ে ৩৪টি দেশীয় প্রজাতির মাছের প্রজনন ও পোনা উৎপাদনের কৌশল উদ্ভাবন করা হয়েছে।

    গবেষক দলে ছিলেন, মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শাহা আলী, ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. আশিকুর রহমান, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জনাব মো. রবিউল আওয়াল, মালিহা খানম, ফারজানা জান্নাত আঁখি ও মো. সাইফুল ইসলাম।

    গবেষক দলের প্রধান মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো: শাহাআলী জানান, শোলমাছ দেশীয় প্রজাতির মাছের মধ্যে অন্যতম ও জনপ্রিয় মাছ। শোলমাছে মানব দেহের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি ও মিনারেল রয়েছে। প্রতি ১০০ গ্রাম মাছে রয়েছে প্রোটিন ১৬.২ গ্রাম, আয়রন ০.৫৪ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৯৫ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ০.১৯ মিলিগ্রাম, জিংক ১০৮০ মাইক্রোগ্রাম। খাল-বিল, হাওড়-বাঁওর, প্লাবনভূমিতে এক সময় শোলমাছ প্রচুর পাওয়া যেত। বর্তমানে জলাশয় সঙ্কোচন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, পানিদূষণ এবং অতি আহরণের ফলে মাছটির বিচরণ ও প্রজননক্ষেত্র বিনষ্ট হওয়ায় এর প্রাপ্যতা সাম্প্রতিক সময়ে অনেক হ্রাস পেয়েছে।মাছটিকে হারিয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে এবং চাষের জন্য পোনার প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা কাজ করেছ বলে জানান তিনি।

    ইনস্টিটিউটের তথ্য মতে, একটি শোল মাছের দৈর্ঘ্য সর্বোচ্চ ১ মিটার এবং ওজনে ৫ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে। শোলমাছ সাধারণত কর্দমাক্ত ও জলাবদ্ধ স্থান এবং জলজ আগাছা রয়েছে এমন স্থানে বেশি পাওয়া যায়। এ মাছের প্রধান আবাসস্থল খাল-বিল ও হাওড়-বাঁওর। এ মাছ সাধারণত জলাশয়ের নিচের স্তরে বসবাস করে কিন্তু ওপরের স্তরের খাবার গ্রহণ করে। শোলমাছ মাংসাসী শ্রেণীর। এরা জুপ্লাংটন, পোকামাকড়, ছোট মাছ, ব্যাঙ, মশার শূককীট এবং জলজ কীটপতঙ্গ শিকার করে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে থাকে।

    বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ বলেন, দেশীয় শোল মাছের কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পোনা উৎপাদন করা ছিল ইনস্টিটিউটের জন্য একটি অন্যতম চ্যালেঞ্জ। দীর্ঘ গবেষণার পর সফলতা আসে। শোল মাছসহ ইনস্টিটিউট এ পর্যন্ত ৩৪ প্রজাতির দেশীয় ও বিপন্ন প্রজাতির মাছের প্রজনন ও চাষাবাদ কৌশল উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে। চলতি বছরে দেশি শোল মাছের পোনা উৎপাদন কৌশল উদ্ভাবন হওয়ায় এ মাছ চাষের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত উম্মোচিত হবে।

    রিলেটেড আর্টিকেল

    সামাজিক যোগাযোগ

    9,748,568ভক্তমত
    1,567,892অনুগামিবৃন্দঅনুসরণ করা
    56,848,496গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব
    - Advertisement -

    সর্বশেষ আর্টিকেল

    জনপ্রিয় আর্টিকেল

    error: Content is protected !! Don\'t try to copy!!!